একজন সফল ব্যবসায়ী ১৪ টি আদর্শ গুণাবলী

0
394

একজন সফল ব্যবসায়ীর ১৪ টি আদর্শ গুণাবলী

ব্যসায়ের অগ্রযাত্রা বিস্তৃত শিল্পের অন্তর্ভুক্ত, যার মধ্যে রয়েছে অর্থ, বিপণন, উদ্যোগ এবং ব্যবস্থাপনা। কোন ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে সফল হতে হলে একজন ব্যবসায়ীর কিছু নির্দিষ্ট গুণাবলী থাকা আবশ্যক। যা তাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে তুলে। একজন সফল ব্যবসায়ীর অবশ্যই যেসব গুণাবলীগুলো থাকা প্রয়োজন:

নেতৃত্ব দানের ক্ষমতা

ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য আপনার অসাধারণ নেতৃত্ব দানের ক্ষমতা থাকা প্রয়োজন। আপনার একটি দল ও কর্মীদের নির্দেশ দেওয়ার সক্ষমতা থাকতে হবে।

ঝুঁকি গ্রহনের ক্ষমতা

একজন বড়মাপের ব্যবসায়ী নেতাকে ব্যবসায়ের উন্নতি ও অগ্রতির জন্য উজ্জিবীত ও ঝুঁকি গ্রহণের মানসিকতা থাকতে হয়।

প্রতিযোগিতামূলক মনোভব

প্রতিযোগিতামূলক মনোভব একজন ব্যবসায়িকে সামনে থেকে ব্যবসা পরিচালনা করতে সাহায্য করে। এরূপ আকাঙ্খা সমজাতীয় প্রতিষ্ঠানের তুলনায় অধিক সফলতা অর্জনে মুখ্য ভূমিকা পালন করে।

বুদ্ধিমত্তা

ব্যবসায় জ্ঞানের পাশাপাশি ব্যবসায়ী নেতাদের প্রযুক্তি, অর্থনীতি, রাজনীতি, ইতিহাস এবং অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে জ্ঞান থাকা গুরুত্বপূর্ণ। বুদ্ধিমত্তা বিষেশ পরিস্থিতি বিবেচনা করে সৃজনশীল কাজ করতে সাহায্য করে।

সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা

সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা একজন ব্যক্তিকে ক্রমাগত কঠোর পরিশ্রম, অভিজ্ঞতা ও সঠিকভাবে কার্যসম্পাদনের জন্য ধাবিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

যোগাযোগ দক্ষতা

সকল ব্যবসার ক্ষেত্রে যোগাযোগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সর্বোচ্চ মাত্রা নিশ্চিত করতে একজন ব্যবসায়ী নেতাকে কার্যকরভাবে লিখিত ও মৌখিকভাবে যোগাযোগ করতে সক্ষম হওয়া আবশ্যক।

উচ্চাকাঙ্খা

অধিকাংশ সফল ব্যবসায়ী নেতারা অত্যধিক উচ্চাকাঙ্খা সম্পন্ন হয়। তাদের প্রচুর উচ্চবিলাসী  লক্ষ্য থাকে (স্বাভাবিক ও বৈধ) যা তাদের উদ্দেশ্য অর্জনে সাহায্য করে।

বিশ্বস্ত

সফল ব্যবসায়ীগণ অত্যন্ত নির্ভর যোগ্য হয়। কার্যসম্পাদনের জন্য তাদের বিশেষভাবে বিবেচনা করা হয় এবং তারা সবসয় ইতিবাচক ভূমিকা পালন করে।

ব্যক্তিগত ও পেশাগত নৈতিকতা

সততা ও নৈতিক মানসিকতা ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। একজন সফল ব্যবসায়ী নিজেকে সম্মানিত ব্যক্তি হিসেবে উপস্থাপন করে এবং সবসময় মার্জিত ও দায়িত্বশীল আচরণ করে।

জনপ্রিয়তা

একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী অসাধারণ ব্যক্তিত্বসম্পন্ন হয়। সহকর্মী, অধ:স্তন ও ঊর্ধ্বতন কর্মচারী-কর্মকর্তারা তাদেরকে শ্রদ্ধা করে এবং তাদের সঙ্গে কাজ করতে সাচ্ছন্দ্যবোধ করে। তারা সকলের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে যা ব্যবসা পরিচালনায় সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

নমনীয়তা

যেকোনো পরিস্থিতিতে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারা ব্যবসায় সফলতার অন্যতম চাবিকাঠি। সফল ব্যবসায়ীগণ নিজেদেরকে সকল পরিস্থিতিতে মানিয়ে নেয়। পরিস্থিতি অনুযায়ী সে তার অবস্থান ঠিক করে।

সমন্বয় করার ক্ষমতা

আদর্শ ব্যবসায়ী নেতারা সহকর্মী, কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে থাকে। সমন্বয়হীনতায় ব্যবসায় কার্যক্রম বিপর্যস্ত হয়ে পরে। একজন সফল ব্যবসায়ী নেতা দক্ষ সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করেন। ব্যবসা হউক সাফল্যের লক্ষ

সহিষ্ণুতা

ব্যবসায় অনুকূল ও প্রতিকূল পরিবেশ বিরাজ করে। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে অনেক ব্যবসায়ী হতাশ ও বিপর্যস্ত হয়ে পরে। যা ব্যবসাকে ধ্বংস করে দিতে পারে। একজন আদর্শ ব্যবসায়ী প্রতিকূল পরিস্থিতিতে ধৈর্য্য ধারণ করে এবং উত্তরণের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

বিচক্ষণতা

সঠিক ও সময় উপযোগী সিদ্ধান্তের উপর ব্যবসায়ের সফলতা অনেকাংশে নির্ভর করে। প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী নেতারা সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণের মাধ্যমে প্রতিকূল অবস্থা মোকাবেলা ও সর্বোচ্চ মুনাফা লাভের সচেষ্ট হয়।

সর্বোপরি, একজন আদর্শ ব্যবসায়ী ব্যবসায় সফলতার জন্য নিরলস পরিশ্রম ও নিজের বিচার-বুদ্ধি তথা প্রয়োজনীয় সকল ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here