ব্যবসার মালিকানা আপনাকে স্বাধীনতা ও ক্ষমতায়ন প্রদান করতে পারে। একটি ব্যবসার মালিকানা উদ্যোক্তাদেরকে নিজেই সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতাসৃজনশীল দৃষ্টিভঙ্গি উপলব্দি ও অন্যান্য উদ্যোক্তাদের সাথে ভাল সম্পর্ক গঠনের সুযোগ প্রদান করে থাকে। তাছাড়া এক্ষেত্রে উদ্যোক্তারা গ্রাহক ও বিক্রেতাদের সাথে দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক বিকাশেরও সুযোগ পেয়ে থাকেন। আর উদ্যোক্তা হিসেবে সফল হওয়ার জন্য কিছু বিশেষ গুণাবলী অর্জন করতে হয়। তাই আমরা আপনার জন্য কয়েকটি পরামর্শ নিয়ে এসেছি যাতে আপনি উদ্যোক্তা হিসেবে সফল হতে পারেন। নিচে তার বিবরণ দেওয়া হল।

দৃঢ় চরিত্রের অধিকারী হওয়া

অধ্যবসায়ই চরিত্রের দৃঢ়তা। আপনি যদি একজন সফল উদ্যেক্তা হতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই অনুকরনীয়অধ্যাবসায়ী আর পরিশ্রমী ব্যক্তি হতে হবে। বিশেএমন কোন উদ্যোক্তা নেই যে তারা বিনা পরিশ্রমে সফল হয়েছেন। তাই আপনাকে অবশ্যই এই সব গুনাবলী গুলো অর্জন করতে হবে।

নিজেকে চ্যালেঞ্জ করুন

সফল উদ্যোক্তা হতে হলে আপনার নিজেকে নিজেই চ্যালেঞ্জ করতে হবে। আপনাকে এমন সব উপায় খোজঁ করতে হবে যেন আপনি আপনার প্রতিদ্বন্ধী উদ্যোক্তাদের থেকে নিজেকে সবার থেকে এগিয়ে রাখতে পারেন। নতুন এবং কঠিন কাজ করার জন্য নিজেকে সব সময় প্রস্তুত রাখতে হবে এবং ক্রমাগত নতুন চ্যালেঞ্জ সমূহ গ্রহন করতে হবে।

আবেগ প্রবণ হওয়া

সাধারণ ভাবে বলা যায় যে উৎসাহই আবেগ। যে কাজের প্রতি আপনার উৎসাহ থাকবে স্বাভাবিক ভাবে সে কাজের প্রতি আপনার আবেগও থাকবে। আপনি যে কাজটি করতে পছন্দ করেন না সে কাজটি করার কখনই চেষ্টা করবেন না। আপনি যে কাজটি করতে বেশি উৎসাহী হন সেটিকেই আপনাকে বেছে নিতে হবে। উদ্যোক্তা হিসেবে আপনাকে দীর্ঘ ঘন্টা কাজ করতে হবে।

তাই আপনাকে যে কাজের প্রতি আপনি সবচেয়ে বেশি উৎসাহী এমন কাজটিই বেছে নিতে হবে। পৃথিবীর বেশির ভাগ সফল উদ্যোক্তাই এমন সব কাজ বিছি নিয়েছেন যার প্রতি তাদের সবচেয়ে বেশি উৎসাহ রয়েছে।

ঝুঁকি নিন

প্রত্যেক ব্যবসায়ের সাখে ঝুঁকি কথাটি জড়িতযা ব্যবসার একটি অংশও বটে। আর প্রত্যেক সফল উদ্যোক্তারাই জানেন যে ঝুঁকি ব্যতিত ব্যবসায় সফল হওয়া সম্ভব নয়। তাই আপনাকে অবশ্যই ঝুঁকি নিয়েই কাজ করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে। কিভাবে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে একজন সফল উদ্যোক্তা হওয়া যায় সেই বিষয়েও আপনার ধারণা থাকতে হবে।

ভয় কমানো

ভয় কর্মের স্পৃহা ধ্বংস করে। যেহেতু উদ্যোক্তাদের তাদের ব্যবসার সফলতার জন্য নতুন নতুন কাজের সাথে ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হয় সেহেতু তাদেরকে ভয় পেলে হবে না। আর আপনি যদি সফল হতে চান তাহলে আপনাকে আত্মনির্ভরশীল হতে হবে এবং আপনাকে অবশ্যই ভয়কে জয় করে কাজে এগিয়ে যেতে হবে। আপনাকে ভয়কে হ্রাস করার উপায় গুলো জানতে হবে। কখনো আপনি ভয়ের জন্য পুরো কাজ থেকে পিছিয়ে যাবেন না। আপনাকে নিজের উপর বিশ্বাস রেখে কাজ করতে হবে। আরো পরুনঃ তরুণ উদ্যোক্তা হিসাবে সফল হওয়ার ৯টি কার্যকারী উপায়

লক্ষ্যকে দৃষ্টিগোচর করুন

প্রত্যেক ব্যবসার প্রধান লক্ষ্যই হচ্ছে সফলতা অর্জন। তাই আপনি যদি সফল উদ্যোক্তা হতে চান তাহলে আপনাকেও একটি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে কাজ করতে হবে। বিশ্বের সব সফল উদ্যোক্তাদের দিকে নজর দিলে দেখা যায় যে তারা তাদের নির্দেষ্ট পরিকল্পনা বা লক্ষ্যকে স্থির করেই কাজে সফল হয়েছেন। কিভাবে আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন তার জন্য আপনাকে উপায় খুঁজতে হবে। আপনি আপনার বন্ধু বা ব্যবসায়িক অংশিদারদের সাথে কথা বলতে পারেন যারা কিনা আপনাকে আপনার লক্ষ্যের কথা স্মরণ করিয়ে দিবে।

সময় ব্যয়

আপনি কি ভাবছেন যারা সফল উদ্যোক্তা তারা রাতারাতি সফল হয়েছেনমোটেও না। তারা তাদের কাজে সফলতার জন্য অধিক সময় ব্যয় করার পর এই সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। তাই আপনি যদি সফল হতে চান তাহলে আপনাকেও অনেক সময় ব্যয় করতে হবে। আপনি তাদেরকে অনুসরণ করতে পারেন যারা বার বার বিফল হয়েও পিছিয়ে যাননি।

আর আপনার এই কাজটি করতে কয়েক দিনকয়েক মাস বা কয়েক বছর লাগতে পারে। তাই আপনাকে ধৈর্য্য সহকারে অতিরিক্ত সময় ব্যয়ের মাধ্যমে আপনার ব্যবসায়িক কর্মকান্ডে সফল হতে হবে।

ব্যবসায়িক পরিকল্পনা

পরিকল্পনা ব্যতিত ব্যবসার কথা ভাবামফ যায় না। একজন উদ্যোক্তা হিসেবে আপনি যখন ব্যবসা শুরু করবেন তখন প্রথমে আপনাকে আপনার পরিকল্পনা নির্ধারণ করতে হবে। আর সেই পরিকল্পনাকে পুঁজি করে আপনি আপনার লক্ষ্য অনুযায়ী কাজ করে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করবেন।

আপনার গ্রাহক কে?

ব্যবসায় ব্যর্থ হওয়ার প্রথম কারণ হচ্ছে গ্রাহক নির্ধারণ করতে না পারা। আপনি যখন একটি ব্যবসা শুরু করবেন এবং পন্য তৈরী করবেন কারা আপনার পন্যের ভোক্তা বা গ্রাহক তা নির্ধারণ করতে হবে। আর গ্রাহকের পরিমাণের উপরই ভিত্তি করে আপনাকে আপনার ব্যবসায় বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। তবে মনে রাখবেন গ্রাহক ছাড়া ব্যবসা কখনই সম্ভব নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here